ঢাকা ০২:৩৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

লালমনিরহাটে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত

newsbijoy.com

লালমনিরহাটে হঠাৎ করে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। ২০২৩ সালের নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে মাঠ দখলের চেষ্টা করলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তা প্রতিরোধের ডাক দিচ্ছে। জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে ৩টিতে বিএনপি ও ২টিতে আওয়ামী লীগ নিজের অবস্থান জানান দেয়ার চেষ্টা করছেন। এ ছাড়া জাতীয় পার্টিও সাংগঠনিক ভাবে সুসংগঠিত হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।
সম্প্রতি বিএনপির নানা কর্মসূচি জেলা সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলায় বাঁধা ছাড়ায় পালিত হয়েছে। কিন্তু হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় তেমন কোনো কর্মসূচি দিতে পারেনি বিএনপি। হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় বিএনপি কর্মসূচি দেয়ার চেষ্টা করলেও আওয়ামী লীগ পাল্টা কর্মসূচি দিয়ে তা প্রতিহত করেছে। কিন্তু জেলা সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলায় বিএনপির কর্মসূচি বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ তেমন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি।
গত ৫ সেপ্টেম্বর জেলা যুবদলের সম্মেলনে বিএনপির হাজার হাজার নেতা-কর্মীদের শহর জুড়ে শোডাউন নিয়ে নানা আলোচনা হচ্ছে। এর আগে সদর উপজেলার বড়বাড়ীতে ফুটবল খেলার আদলে ৭ দিন ধরে বিএনপির নানা কর্মসূচি পালিত হয়েছে। যে কর্মসূচি গুলোতে হাজার হাজার বিএনপির নেতা-কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। এ নিয়ে খোদ আওয়ামী লীগ সমর্থিত নেতা-কর্মীরা বলছে, সারা দেশে যখন বিএনপি তাদের কর্মসূচিতে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে ঠিক তখন লালমনিরহাট জেলা সদরে একের পর এক বিএনপি কর্মসূচি সফল হচ্ছে কি ভাবে? এতে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা মনে হচ্ছে।

এছাড়া জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এ জেলার সদর আসনের সংসদ সদস্য। জাতীয় পার্টি ছেড়ে যারা অন্য দলে চলে গেছেন তাদের দলে ফিরে আনার জন্য তিনি কাজ করছেন। তাদের দাবি দলকে দ্রুত সময়ের মধ্যে সুসংগঠিত করা হবে।

লালমনিরহাট-১ (হাতীবান্ধা-পাটগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তার নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে বিএনপিকে কোনঠাসা করে রেখেছেন। এ আসনে বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার হাসান রাজীব প্রধান বেশিভাগ সময় ঢাকায় অবস্থান করেন। ফলে নেতাদের সাথে তার যোগাযোগ থাকলেও কর্মীদের সাথে যোগাযোগ নেই বললে চলে। এ দুই উপজেলায় বিএনপির চেয়ে জাতীয় পার্টি ও জামাতেই অনেকটা সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী।

লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসনের সংসদ সদস্য সমাজকাল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। তিনি তার নির্বাচনী এলাকায় দলকে তেমন সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী করতে না পারলেও বিএনপির প্রার্থী রোকন উদ্দিন বাবুল দলকে শক্তিশালী করতে চেষ্টা করছেন। নানা কর্মসূচির মাধ্যমে নিজের অবস্থান জানান দিচ্ছেন বিএনপি।

তবে সম্প্রতি মন্ত্রী পুত্র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুজ্জামান আহমেদ দলকে গতিশীল করতে চেষ্টা শুরু করেছেন। পাশাপাশি মিজানুর রহমান মিজু কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পাওয়ার পর দলীয় নানা কর্মসূচি দেখা যাচ্ছে।

লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের। এ জেলায় জাতীয় পার্টির তেমন সাংগঠনিক অবস্থান নেই বলে চলে। বিএনপির একের পর এক কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের মাঠ পযার্য়ের নেতা-কর্মীদের সমালোচনায় জেলা ও উপজেলা কমিটির নেতারা বিপাকে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত কর্মীদের অভিযোগ দলের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে বিএনপির কর্মসূচির বিরুদ্ধে পাল্টা কর্মসূচি দিতে পারছে না আওয়ামী লীগ।

লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি ও রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, শুধু বিএনপির নেতা-কর্মীরা নয়, সাধারণ মানুষ আমাদের সাথে রয়েছেন। ফলে আওয়ামী লীগ আমাদের বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেয়ার সাহস পাচ্ছে না।
লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন এমপি বলেন, বিএনপি শান্তিপুর্ণ কর্মসূচি করলে করতে পারে। কিন্তু কর্মসূচির নামে যদি ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করেন তাহলে সঠিক জবাব দেয়া হবে। লালমনিরহাটের সাধারণ মানুষ আওয়ামী লীগের সাথে আছেন।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

নামাজের সময়সূচি : ০৫ অক্টোবর ২০২২

লালমনিরহাটে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত

প্রকাশিত সময়: ১০:১৬:২৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

লালমনিরহাটে হঠাৎ করে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। ২০২৩ সালের নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে মাঠ দখলের চেষ্টা করলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তা প্রতিরোধের ডাক দিচ্ছে। জেলার ৫টি উপজেলার মধ্যে ৩টিতে বিএনপি ও ২টিতে আওয়ামী লীগ নিজের অবস্থান জানান দেয়ার চেষ্টা করছেন। এ ছাড়া জাতীয় পার্টিও সাংগঠনিক ভাবে সুসংগঠিত হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।
সম্প্রতি বিএনপির নানা কর্মসূচি জেলা সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলায় বাঁধা ছাড়ায় পালিত হয়েছে। কিন্তু হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় তেমন কোনো কর্মসূচি দিতে পারেনি বিএনপি। হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় বিএনপি কর্মসূচি দেয়ার চেষ্টা করলেও আওয়ামী লীগ পাল্টা কর্মসূচি দিয়ে তা প্রতিহত করেছে। কিন্তু জেলা সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলায় বিএনপির কর্মসূচি বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ তেমন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি।
গত ৫ সেপ্টেম্বর জেলা যুবদলের সম্মেলনে বিএনপির হাজার হাজার নেতা-কর্মীদের শহর জুড়ে শোডাউন নিয়ে নানা আলোচনা হচ্ছে। এর আগে সদর উপজেলার বড়বাড়ীতে ফুটবল খেলার আদলে ৭ দিন ধরে বিএনপির নানা কর্মসূচি পালিত হয়েছে। যে কর্মসূচি গুলোতে হাজার হাজার বিএনপির নেতা-কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। এ নিয়ে খোদ আওয়ামী লীগ সমর্থিত নেতা-কর্মীরা বলছে, সারা দেশে যখন বিএনপি তাদের কর্মসূচিতে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে ঠিক তখন লালমনিরহাট জেলা সদরে একের পর এক বিএনপি কর্মসূচি সফল হচ্ছে কি ভাবে? এতে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা মনে হচ্ছে।

এছাড়া জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এ জেলার সদর আসনের সংসদ সদস্য। জাতীয় পার্টি ছেড়ে যারা অন্য দলে চলে গেছেন তাদের দলে ফিরে আনার জন্য তিনি কাজ করছেন। তাদের দাবি দলকে দ্রুত সময়ের মধ্যে সুসংগঠিত করা হবে।

লালমনিরহাট-১ (হাতীবান্ধা-পাটগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তার নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে বিএনপিকে কোনঠাসা করে রেখেছেন। এ আসনে বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার হাসান রাজীব প্রধান বেশিভাগ সময় ঢাকায় অবস্থান করেন। ফলে নেতাদের সাথে তার যোগাযোগ থাকলেও কর্মীদের সাথে যোগাযোগ নেই বললে চলে। এ দুই উপজেলায় বিএনপির চেয়ে জাতীয় পার্টি ও জামাতেই অনেকটা সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী।

লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসনের সংসদ সদস্য সমাজকাল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। তিনি তার নির্বাচনী এলাকায় দলকে তেমন সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী করতে না পারলেও বিএনপির প্রার্থী রোকন উদ্দিন বাবুল দলকে শক্তিশালী করতে চেষ্টা করছেন। নানা কর্মসূচির মাধ্যমে নিজের অবস্থান জানান দিচ্ছেন বিএনপি।

তবে সম্প্রতি মন্ত্রী পুত্র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুজ্জামান আহমেদ দলকে গতিশীল করতে চেষ্টা শুরু করেছেন। পাশাপাশি মিজানুর রহমান মিজু কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পাওয়ার পর দলীয় নানা কর্মসূচি দেখা যাচ্ছে।

লালমনিরহাট-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের। এ জেলায় জাতীয় পার্টির তেমন সাংগঠনিক অবস্থান নেই বলে চলে। বিএনপির একের পর এক কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের মাঠ পযার্য়ের নেতা-কর্মীদের সমালোচনায় জেলা ও উপজেলা কমিটির নেতারা বিপাকে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত কর্মীদের অভিযোগ দলের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে বিএনপির কর্মসূচির বিরুদ্ধে পাল্টা কর্মসূচি দিতে পারছে না আওয়ামী লীগ।

লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি ও রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, শুধু বিএনপির নেতা-কর্মীরা নয়, সাধারণ মানুষ আমাদের সাথে রয়েছেন। ফলে আওয়ামী লীগ আমাদের বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেয়ার সাহস পাচ্ছে না।
লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন এমপি বলেন, বিএনপি শান্তিপুর্ণ কর্মসূচি করলে করতে পারে। কিন্তু কর্মসূচির নামে যদি ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করেন তাহলে সঠিক জবাব দেয়া হবে। লালমনিরহাটের সাধারণ মানুষ আওয়ামী লীগের সাথে আছেন।

নিউজবিজয়/এফএইচএন