ঢাকা ০৮:৩৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

লালমনিরহাটে পাচারের শিকার কলেজ ছাত্রী ভারতে উদ্ধার, অভিযোগের তীর পুলিশ কর্মকর্তার দিকে

newsbijoy.com

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী কুলছুম আক্তার মনিকে অপহরণের পর তাকে ভারতে পাচার করা হয়েছে। এমন একটি ভিডিও (নিউজ বিজয়ের ফেসবুক পেজ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। প্রেম করে বিয়ে করতে গিয়ে অপহরণের পর পাচারের শিকার হন ওই কলেজ ছাত্রী। এ অপহরণ ও পাচারের ঘটনার সাথে প্রেমিক তিলক ও তার কয়েকজন বন্ধু জড়িত। আর বিয়ের পর তাকে ভারতে পাচার করা হয় এ পাচারের সাথে হাতীবান্ধা থানার এক পুলিশ সদস্য জড়িত এমন অভিযোগ ওই ছাত্রীর।
জানা গেছে, গত বছরের গত ৫ ডিসেম্বর অপহরণের শিকার হয় ওই কলেজ ছাত্রী। অপহরণের পর হাতীবান্ধা থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন ওই ছাত্রীর বড় ভাই কামরুজ্জামান লুলু। ওই মামলায় হাতীবান্ধা উপজেলার গেন্দুকুড়ি এলাকার ধনঞ্জয়ের পুত্র তিলকসহ ৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। কিন্তু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাতীবান্ধা থানার উপ পরিদর্শক সুকুমার রায় ওই কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার না করেই ২ আসামীকে বাদ দিয়ে ইতোমধ্যে চার্জসীট আদালতে জমা দিয়েছেন।

আরো পড়ুন>>ভোলায় জ্বীনের বাদশা সেজে প্রতারনা হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি টাকা 

মেয়েকে ইতোমধ্যে তার পরিবারের সহযোগিতায় ভারতীয় পুলিশ উদ্ধার করেছেন। আটক করেন ওই প্রতারক তিলককেও। মেয়েকে উদ্ধার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে ভারতীয় পুলিশ।
অপহরণের পর পাচারের শিকার ওই কলেজ ছাত্রী দাবী করেছেন, তাকে ভারতে পাচারের সব কিছু পুলিশের ওই কর্মকর্তা সুকুমার রায় জানেন। পাচারের সাথে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জড়িত। ওই ছাত্রীর সাথে তার পরিচিত একজনের ফোনে কথা বলার সময় এমন দাবী করেন।
এ নিয়ে হাতীবান্ধা থানার উপ পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুকুমার রায়ের সাথে কথা হয়েছে। তিনি দাবী করেছেন তার বিরুদ্ধে টাকা নেয়া ও পাচারে সহযোগিতা করার অভিযোগটি সাজানো। তিনি শুধু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন।
হাতীবান্ধা থানার ওসি শাহা আলম পুরো বিষয়টি তিনি গুরুত্বরের সহকারে দেখা হচ্ছে। সত্যতা যাচাই করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

No description available.

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

জলঢাকায় রোড শো উদ্বোধন

লালমনিরহাটে পাচারের শিকার কলেজ ছাত্রী ভারতে উদ্ধার, অভিযোগের তীর পুলিশ কর্মকর্তার দিকে

প্রকাশিত সময়: ০২:০৮:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী কুলছুম আক্তার মনিকে অপহরণের পর তাকে ভারতে পাচার করা হয়েছে। এমন একটি ভিডিও (নিউজ বিজয়ের ফেসবুক পেজ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। প্রেম করে বিয়ে করতে গিয়ে অপহরণের পর পাচারের শিকার হন ওই কলেজ ছাত্রী। এ অপহরণ ও পাচারের ঘটনার সাথে প্রেমিক তিলক ও তার কয়েকজন বন্ধু জড়িত। আর বিয়ের পর তাকে ভারতে পাচার করা হয় এ পাচারের সাথে হাতীবান্ধা থানার এক পুলিশ সদস্য জড়িত এমন অভিযোগ ওই ছাত্রীর।
জানা গেছে, গত বছরের গত ৫ ডিসেম্বর অপহরণের শিকার হয় ওই কলেজ ছাত্রী। অপহরণের পর হাতীবান্ধা থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন ওই ছাত্রীর বড় ভাই কামরুজ্জামান লুলু। ওই মামলায় হাতীবান্ধা উপজেলার গেন্দুকুড়ি এলাকার ধনঞ্জয়ের পুত্র তিলকসহ ৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। কিন্তু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাতীবান্ধা থানার উপ পরিদর্শক সুকুমার রায় ওই কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার না করেই ২ আসামীকে বাদ দিয়ে ইতোমধ্যে চার্জসীট আদালতে জমা দিয়েছেন।

আরো পড়ুন>>ভোলায় জ্বীনের বাদশা সেজে প্রতারনা হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি টাকা 

মেয়েকে ইতোমধ্যে তার পরিবারের সহযোগিতায় ভারতীয় পুলিশ উদ্ধার করেছেন। আটক করেন ওই প্রতারক তিলককেও। মেয়েকে উদ্ধার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে ভারতীয় পুলিশ।
অপহরণের পর পাচারের শিকার ওই কলেজ ছাত্রী দাবী করেছেন, তাকে ভারতে পাচারের সব কিছু পুলিশের ওই কর্মকর্তা সুকুমার রায় জানেন। পাচারের সাথে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জড়িত। ওই ছাত্রীর সাথে তার পরিচিত একজনের ফোনে কথা বলার সময় এমন দাবী করেন।
এ নিয়ে হাতীবান্ধা থানার উপ পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুকুমার রায়ের সাথে কথা হয়েছে। তিনি দাবী করেছেন তার বিরুদ্ধে টাকা নেয়া ও পাচারে সহযোগিতা করার অভিযোগটি সাজানো। তিনি শুধু মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন।
হাতীবান্ধা থানার ওসি শাহা আলম পুরো বিষয়টি তিনি গুরুত্বরের সহকারে দেখা হচ্ছে। সত্যতা যাচাই করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

No description available.