ঢাকা ০৬:২২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুরু হলো শোকের মাস আগস্ট

মারা গেলেন মিটফোর্ডের সেই চিকিৎসক

পারিবারিক কলহের জেরে নিজ শরীরে আগুন দেওয়া মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক অদিতি সরকার মারা গেছেন। অদিতি রাজধানীর ওয়ারী থানার হেয়ার স্ট্রিট রোডের বাসিন্দা ছিলেন।

আজ বুধবার সকাল সোয়া ১০টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মৃত্যু হয় তার।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইয়ুব হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সকাল সোয়া ১০টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আইসিইউয়ের ১৮ নম্বর বেডে মারা যান মিটফোর্ড হাসপাতালের ওই নারী চিকিৎসক। তার শরীরের ৫০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।

এ ব্যাপারে অদিতির স্বামী গণমাধ্যমকে বলেন, আমার স্ত্রী মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আমি একজন ইঞ্জিনিয়ার। গত শুক্রবার দুপুরে সামান্য বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে সে নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়।

 

সম্পর্কিত বিষয় :

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় সংবাদটি শেয়ার দিন।

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

ইতিহাসের এই দিনে: রোববার,১৪ই আগস্ট-২০২২

মারা গেলেন মিটফোর্ডের সেই চিকিৎসক

আপডেট সময় : ০৭:১৪:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

পারিবারিক কলহের জেরে নিজ শরীরে আগুন দেওয়া মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক অদিতি সরকার মারা গেছেন। অদিতি রাজধানীর ওয়ারী থানার হেয়ার স্ট্রিট রোডের বাসিন্দা ছিলেন।

আজ বুধবার সকাল সোয়া ১০টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মৃত্যু হয় তার।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইয়ুব হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সকাল সোয়া ১০টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আইসিইউয়ের ১৮ নম্বর বেডে মারা যান মিটফোর্ড হাসপাতালের ওই নারী চিকিৎসক। তার শরীরের ৫০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।

এ ব্যাপারে অদিতির স্বামী গণমাধ্যমকে বলেন, আমার স্ত্রী মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আমি একজন ইঞ্জিনিয়ার। গত শুক্রবার দুপুরে সামান্য বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে সে নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়।