ঢাকা ০৪:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :-
NewsBijoy নিউজ বিজয়ের পক্ষ থেকে সবাইকে  অভিনন্দন NewsBijoy  দেশের জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল  " নিউজ বিজয় নতুন আঙ্গিকে যাত্রা শুরু করলো " NewsBijoy  এ জন্য  নিউজ বিজয়ের সাইডে আপডেটের কাজ চলছে। তাই এই পরিবর্তনের সময়ে পাঠকের সাময়িক সমস্যা হতে পারে। NewsBijoy

পদ্মা সেতু নির্মাণ

বিলুপ্তির পথে টক মিষ্টি স্বাদের ডেউয়া

ছবিতে টক মিষ্টি স্বাদের ডেউয়া

গ্রাম বাংলার অতি পরিচিত ফল ডেউয়া। এটি বন কাঁঠাল বা গ্রাম্য ভাষায় বত্তা ফল হিসেবে পরিচিত। দেখতে অদ্ভুত টক-মিষ্টি স্বাদের এ ফলটি সবার পছন্দ। ডেউয়া বা বত্তা ফলের গাছ ছোট বয়সে অনেকেই দেখছেন। বর্তমানে ফলটি বিলুপ্তির পথে। বর্তমান ভোলার লালমোহন উপজেলায় এখনো ডেউয়া গাছ আছে। এটি কাঁঠাল গাছের মতই বড় হয়। ফল ধরার আগে দেখে বোঝার উপায় থাকে না।

ডেউয়া গাছের আকার বড় কিন্তু ফল বেশ ছোট। খোসাটা বেশ পাতলা। এর শাঁসগুলো বেশ ছোট।

গ্রামে বন ধ্বংসের কারণে ডেউয়া বা বন কাঁঠাল দুর্লভ হয়ে পড়ছে। গ্রামগঞ্জে পাওয়া গেলেও শহুরে খুব একটা চোখে পড়ে না। গ্রীষ্মকালীন ফলের পাশাপাশি বাজারে দেখা মিলে বিলুপ্ত প্রায় এই ফল।

ডেউয়া গাছ বহু শাখা-প্রশাখা বিশিষ্ট, বড় আকারের বৃক্ষ। প্রায় ২০-২৫ ফুট উঁচু হয়। এর ছাল ধূসর-বাদামী রঙের। গাছের ভেতর সাদাটে কষ বা আঠা থাকে। পাতা ৬-১২ ইঞ্চি লম্বা এবং ৪-৭ ইঞ্চি চওড়া হয়, যা অনেকটা কাক ডুমুরের পাতার মত । তবে আকারে সামান্য বড়।

স্ত্রী ও পুরুষ ফুল আলাদা। স্ত্রী ফুল আকারে বড় ও মসৃণ। এর ফুলে পাপড়ি নেই, ছোট গুটিরমত। স্ত্রী ফুল থেকে ফল হয়। ফল কাঁঠালের ন্যায় যৌগিক বা গুচ্ছ ফল। বাইরের আবরণ অসমান। কাঁচা ফল সবুজ, পাকলে হলুদ। ভিতরের শাঁস লালচে হলুদ। প্রতিটি শাঁসের মধ্যে একটি করে বীজ থাকে। সাধারণত মার্চ মাসে ফল আসে এবং মে মাসের শেষের দিকে ফল পাকতে শুরু করে। গাছ রোপনের উপযুক্ত সময় বর্ষাকাল।

দেখতে অদ্ভুত এবং খেতে টক-মিষ্টি। ডেউয়া ফল স্বাস্থ্যেরজন্য খুবই উপকারী। পাশাপাশি এর রয়েছে বেশকিছু ভেষজ গুণ। অনিয়ন্ত্রিত ওজন বর্তমান সময়ে একটা বড় সমস্যা। অথচ ঠাণ্ডা পানিতে ডেউয়া ফলের রস মিশিয়ে নিয়মিত পান করলেই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় বলে জানান স্থানীয় একাধিক প্রবীণ গ্রাম্য কবিরাজ । এমনকি ডেউয়া ফল রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করে খাওয়া যায়।

মুখেররুচি ফেরাতে খাওয়া হয় এই ফল। ডেউয়া ফলের রসের সঙ্গে সামান্য লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া মিশিয়ে খাওয়ার আগে খেলে মুখে রুচি ফিরে আসবে।

পুষ্টি বিজ্ঞানীরা বলেন, মধুর অম্ল যুক্ত পাকা ডেউয়া অরুচি ও পেটের বায়ুনাশে অমৃত। শুধু তাই নয়, পিত্ত ও যকৃতের জন্য উপকারী।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

সম্পর্কিত বিষয় :

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। নিউজবিজয় এখন তিন ভাষায় পড়ুন – (NewsBijoy Now Read in Three Languages) 'মানবতার পক্ষে সবসময়'
google-site-verification=UO1HbFf0NxKIcAiGGkVM6Eep26651AwVIggwiiCxJDg

বিলুপ্তির পথে টক মিষ্টি স্বাদের ডেউয়া

আপডেট সময় : ১২:০৭:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২

গ্রাম বাংলার অতি পরিচিত ফল ডেউয়া। এটি বন কাঁঠাল বা গ্রাম্য ভাষায় বত্তা ফল হিসেবে পরিচিত। দেখতে অদ্ভুত টক-মিষ্টি স্বাদের এ ফলটি সবার পছন্দ। ডেউয়া বা বত্তা ফলের গাছ ছোট বয়সে অনেকেই দেখছেন। বর্তমানে ফলটি বিলুপ্তির পথে। বর্তমান ভোলার লালমোহন উপজেলায় এখনো ডেউয়া গাছ আছে। এটি কাঁঠাল গাছের মতই বড় হয়। ফল ধরার আগে দেখে বোঝার উপায় থাকে না।

ডেউয়া গাছের আকার বড় কিন্তু ফল বেশ ছোট। খোসাটা বেশ পাতলা। এর শাঁসগুলো বেশ ছোট।

গ্রামে বন ধ্বংসের কারণে ডেউয়া বা বন কাঁঠাল দুর্লভ হয়ে পড়ছে। গ্রামগঞ্জে পাওয়া গেলেও শহুরে খুব একটা চোখে পড়ে না। গ্রীষ্মকালীন ফলের পাশাপাশি বাজারে দেখা মিলে বিলুপ্ত প্রায় এই ফল।

ডেউয়া গাছ বহু শাখা-প্রশাখা বিশিষ্ট, বড় আকারের বৃক্ষ। প্রায় ২০-২৫ ফুট উঁচু হয়। এর ছাল ধূসর-বাদামী রঙের। গাছের ভেতর সাদাটে কষ বা আঠা থাকে। পাতা ৬-১২ ইঞ্চি লম্বা এবং ৪-৭ ইঞ্চি চওড়া হয়, যা অনেকটা কাক ডুমুরের পাতার মত । তবে আকারে সামান্য বড়।

স্ত্রী ও পুরুষ ফুল আলাদা। স্ত্রী ফুল আকারে বড় ও মসৃণ। এর ফুলে পাপড়ি নেই, ছোট গুটিরমত। স্ত্রী ফুল থেকে ফল হয়। ফল কাঁঠালের ন্যায় যৌগিক বা গুচ্ছ ফল। বাইরের আবরণ অসমান। কাঁচা ফল সবুজ, পাকলে হলুদ। ভিতরের শাঁস লালচে হলুদ। প্রতিটি শাঁসের মধ্যে একটি করে বীজ থাকে। সাধারণত মার্চ মাসে ফল আসে এবং মে মাসের শেষের দিকে ফল পাকতে শুরু করে। গাছ রোপনের উপযুক্ত সময় বর্ষাকাল।

দেখতে অদ্ভুত এবং খেতে টক-মিষ্টি। ডেউয়া ফল স্বাস্থ্যেরজন্য খুবই উপকারী। পাশাপাশি এর রয়েছে বেশকিছু ভেষজ গুণ। অনিয়ন্ত্রিত ওজন বর্তমান সময়ে একটা বড় সমস্যা। অথচ ঠাণ্ডা পানিতে ডেউয়া ফলের রস মিশিয়ে নিয়মিত পান করলেই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় বলে জানান স্থানীয় একাধিক প্রবীণ গ্রাম্য কবিরাজ । এমনকি ডেউয়া ফল রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করে খাওয়া যায়।

মুখেররুচি ফেরাতে খাওয়া হয় এই ফল। ডেউয়া ফলের রসের সঙ্গে সামান্য লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া মিশিয়ে খাওয়ার আগে খেলে মুখে রুচি ফিরে আসবে।

পুষ্টি বিজ্ঞানীরা বলেন, মধুর অম্ল যুক্ত পাকা ডেউয়া অরুচি ও পেটের বায়ুনাশে অমৃত। শুধু তাই নয়, পিত্ত ও যকৃতের জন্য উপকারী।

নিউজবিজয়/এফএইচএন