ঢাকা ০৫:৫১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :-
NewsBijoy নিউজ বিজয়ের পক্ষ থেকে সবাইকে  অভিনন্দন NewsBijoy  দেশের জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল  " নিউজ বিজয় নতুন আঙ্গিকে যাত্রা শুরু করলো " NewsBijoy  এ জন্য  নিউজ বিজয়ের সাইডে আপডেটের কাজ চলছে। তাই এই পরিবর্তনের সময়ে পাঠকের সাময়িক সমস্যা হতে পারে। NewsBijoy

পদ্মা সেতু নির্মাণ

বন্যায় আসাম ও মেঘালয়ে ৩১ জনের মৃত্যু

আসাম ও মেঘালয়ের প্রধান নদীগুলোর পানির স্তর বৃদ্ধির ফলে বন্যা পরিস্থিতির অনেক অবনতি হয়েছে। এরই মধ্যে বন্যার কারণে এ দুই রাজ্যে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। অবিরাম বৃষ্টির ফলে দুই রাজ্যের অনেক জায়গায় ভূমিধসের ঘটনাও ঘটেছে।

আসামের ২৮টি জেলার অন্তত ১৯ লাখ মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং নবগঠিত বাজালি জেলা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আসাম রাজ্যের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ব্রহ্মপুত্র ও গৌরাঙ্গ নদীর পানি অনেক এলাকায় বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এ ছাড়া আসামে গত দুই দিনে বন্যায় অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার। অন্যদিকে মেঘালয় প্রশাসন গত ২ দিনে ১৯ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে গণমাধ্যমকে।

বন্যাকবলিত জেলাগুলোয় প্রশাসন সতর্কতা জারি করেছে, জরুরি প্রয়োজন না হলে বা কোনও মেডিকেল বিষয়ক প্রয়োজন না হলে লোকজনকে বাড়ির বাইরে না যাওয়ার আহ্বান জানান হয়েছে।

এদিকে জানা যায়, টানা তৃতীয় দিনের মতো জলাবদ্ধতার কারণে আসামের রাজধানী গুয়াহাটির বেশিরভাগ অংশ স্থবির হয়ে পড়েছে। গুয়াহাটি শহরেও বেশ কয়েকটি ভূমিধসের খবর পাওয়া গেছে এবং নুনমতি এলাকার অজন্তানগরে তিনজন আহত হয়েছেন।
খবর এনডিটিভি

নিউজবিজয়/এফএইচএন

সম্পর্কিত বিষয় :

পাঠকের মন্তব্য:

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। নিউজবিজয় এখন তিন ভাষায় পড়ুন – (NewsBijoy Now Read in Three Languages) 'মানবতার পক্ষে সবসময়'

মাকে নিয়ে সেলফি তুললেন প্রধানমন্ত্রীকন্যা পুতুল

পদ্মা সেতু নির্মাণ

বন্যায় আসাম ও মেঘালয়ে ৩১ জনের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০১:২১:১৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ জুন ২০২২

আসাম ও মেঘালয়ের প্রধান নদীগুলোর পানির স্তর বৃদ্ধির ফলে বন্যা পরিস্থিতির অনেক অবনতি হয়েছে। এরই মধ্যে বন্যার কারণে এ দুই রাজ্যে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। অবিরাম বৃষ্টির ফলে দুই রাজ্যের অনেক জায়গায় ভূমিধসের ঘটনাও ঘটেছে।

আসামের ২৮টি জেলার অন্তত ১৯ লাখ মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং নবগঠিত বাজালি জেলা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আসাম রাজ্যের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ব্রহ্মপুত্র ও গৌরাঙ্গ নদীর পানি অনেক এলাকায় বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এ ছাড়া আসামে গত দুই দিনে বন্যায় অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার। অন্যদিকে মেঘালয় প্রশাসন গত ২ দিনে ১৯ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে গণমাধ্যমকে।

বন্যাকবলিত জেলাগুলোয় প্রশাসন সতর্কতা জারি করেছে, জরুরি প্রয়োজন না হলে বা কোনও মেডিকেল বিষয়ক প্রয়োজন না হলে লোকজনকে বাড়ির বাইরে না যাওয়ার আহ্বান জানান হয়েছে।

এদিকে জানা যায়, টানা তৃতীয় দিনের মতো জলাবদ্ধতার কারণে আসামের রাজধানী গুয়াহাটির বেশিরভাগ অংশ স্থবির হয়ে পড়েছে। গুয়াহাটি শহরেও বেশ কয়েকটি ভূমিধসের খবর পাওয়া গেছে এবং নুনমতি এলাকার অজন্তানগরে তিনজন আহত হয়েছেন।
খবর এনডিটিভি

নিউজবিজয়/এফএইচএন