ঢাকা ০২:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

ফের মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি এসে পড়ল বাংলাদেশে

  • অনলাইন ডেস্ক :-
  • প্রকাশিত সময়: ০৯:৪৯:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • 91

newsbijoy.com

মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি এসে পড়েছে বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম-তমব্রু সীমান্তের বাংলাদেশ অভ্যন্তরে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

আজ শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ৩টার দিকে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। সন্ধ্যার দিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড তমব্রু ঘোনারপাড়া এলাকায় একটি গুলি এসে পড়ে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সালমা ফেরদৌস বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি তমব্রু সীমান্তের কোনাপাড়া এসে পড়ার খবর স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে। তবে এতে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। সীমান্তের ওপারে গোলাগুলি শব্দ হচ্ছে। মাঝখানে মাত্র দুদিন গোলাগুলি বন্ধ ছিল। তারপর থেকে সেখানে গোলাগুলি চলছে। আমরা সীমান্তের খবর রাখছি।’

ঘুমধুম ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. আনোয়ার হোসেন জানান, আজ বেলা সাড়ে ৩টা থেকে গোলাগুলি শুরু হয়। পরে সন্ধ্যার দিকে ৩ নম্বর ওয়ার্ড তমব্রু ঘোনারপাড়া এলাকায় ক্ষুদ্রাস্ত্রের একটি গুলি এসে পড়ার খবর জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

তমব্রু সীমান্তের বাসিন্দা মো. কামাল বলেন, ‘বিকাল থেকে ফের গোলাগুলি চলছে সীমান্তে। এখনো গুলির শব্দ কানে আসছে। রাত হওয়ায় মানুষজন ভয়ে আছে। শুনেছি, আজকে মিয়ানমার থেকে আরও একটি গুলি এসে এখানে পড়েছে। আকাশে যুদ্ধবিমানও দেখা গেছে।’

সীমান্তে বসবাসকারীরা বলছেন, বিকাল থেকে হঠাৎ আবারও নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্তের মাঝামাঝি স্থানে মিয়ানমার সীমান্তে বৃষ্টির মতো গোলাগুলি হচ্ছে। আজকে অন্যদিনের চেয়ে বেশি শব্দ পাওয়া যাচ্ছে। রাত ৮টা পর্যন্ত গুলিবর্ষণের আওয়াজ পাওয়া গেছে। তমব্রু কোনারপাড়ায় মিয়ানমার থেকে একটি গুলি এসে পড়ার ঘটনাও ঘটেছে। এতে সীমান্তের লোকজন আতঙ্কেও রয়েছেন।

এ বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম তারিক।

এদিকে পাঁচ বছর ধরে ওই সীমান্তের শূন্যরেখায় বসবাস করে আসছেন চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। কয়েক দিন ধরে সীমান্তঘেঁষা এলাকায় মর্টারশেল-গোলা ছোড়ার পাশাপাশি সীমান্তের আকাশে যুদ্ধবিমান থেকেও ছোড়া হচ্ছে। নোম্যান্স ল্যান্ডে থাকা রোহিঙ্গাদের দিন আতঙ্কে কাটছে।

প্রসঙ্গত গত ৩ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া দুটি গোলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকায় পড়ে। তার আগে ২৮ আগস্ট বেলা ৩টার দিকে মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা একটি মর্টারশেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তুমব্রু উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে। উভয় ঘটনায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

ফের মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি এসে পড়ল বাংলাদেশে

প্রকাশিত সময়: ০৯:৪৯:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি এসে পড়েছে বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম-তমব্রু সীমান্তের বাংলাদেশ অভ্যন্তরে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

আজ শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ৩টার দিকে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। সন্ধ্যার দিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড তমব্রু ঘোনারপাড়া এলাকায় একটি গুলি এসে পড়ে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সালমা ফেরদৌস বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলি তমব্রু সীমান্তের কোনাপাড়া এসে পড়ার খবর স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে। তবে এতে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। সীমান্তের ওপারে গোলাগুলি শব্দ হচ্ছে। মাঝখানে মাত্র দুদিন গোলাগুলি বন্ধ ছিল। তারপর থেকে সেখানে গোলাগুলি চলছে। আমরা সীমান্তের খবর রাখছি।’

ঘুমধুম ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. আনোয়ার হোসেন জানান, আজ বেলা সাড়ে ৩টা থেকে গোলাগুলি শুরু হয়। পরে সন্ধ্যার দিকে ৩ নম্বর ওয়ার্ড তমব্রু ঘোনারপাড়া এলাকায় ক্ষুদ্রাস্ত্রের একটি গুলি এসে পড়ার খবর জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

তমব্রু সীমান্তের বাসিন্দা মো. কামাল বলেন, ‘বিকাল থেকে ফের গোলাগুলি চলছে সীমান্তে। এখনো গুলির শব্দ কানে আসছে। রাত হওয়ায় মানুষজন ভয়ে আছে। শুনেছি, আজকে মিয়ানমার থেকে আরও একটি গুলি এসে এখানে পড়েছে। আকাশে যুদ্ধবিমানও দেখা গেছে।’

সীমান্তে বসবাসকারীরা বলছেন, বিকাল থেকে হঠাৎ আবারও নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্তের মাঝামাঝি স্থানে মিয়ানমার সীমান্তে বৃষ্টির মতো গোলাগুলি হচ্ছে। আজকে অন্যদিনের চেয়ে বেশি শব্দ পাওয়া যাচ্ছে। রাত ৮টা পর্যন্ত গুলিবর্ষণের আওয়াজ পাওয়া গেছে। তমব্রু কোনারপাড়ায় মিয়ানমার থেকে একটি গুলি এসে পড়ার ঘটনাও ঘটেছে। এতে সীমান্তের লোকজন আতঙ্কেও রয়েছেন।

এ বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম তারিক।

এদিকে পাঁচ বছর ধরে ওই সীমান্তের শূন্যরেখায় বসবাস করে আসছেন চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। কয়েক দিন ধরে সীমান্তঘেঁষা এলাকায় মর্টারশেল-গোলা ছোড়ার পাশাপাশি সীমান্তের আকাশে যুদ্ধবিমান থেকেও ছোড়া হচ্ছে। নোম্যান্স ল্যান্ডে থাকা রোহিঙ্গাদের দিন আতঙ্কে কাটছে।

প্রসঙ্গত গত ৩ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে ছোড়া দুটি গোলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকায় পড়ে। তার আগে ২৮ আগস্ট বেলা ৩টার দিকে মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা একটি মর্টারশেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তুমব্রু উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে। উভয় ঘটনায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন