ঢাকা ১০:০৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

থাকার কথা বাসর ঘরে রবিউল এখন শ্রীঘরে

newsbijoy.com

স্ত্রী থাকার পরেও দ্বিতীয় বিয়ে করতে এসে জনতার হাতে আটক হলো যৌতুক লোভী বিয়ে পাগল রবিউল। বিয়ের পর রাতে রবিউলের বাসর ঘরে থাকার কথা কিন্তু বিধি বাম। জানা গেছে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধামশ্রেনী ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামে আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়া’র ছেলে প্রথম স্ত্রী থাকার পরেও দ্বিতীয় বিয়ের আসরে বসে।বিয়ের কাবিননামা সম্পাদনের সময় প্রথম স্ত্রীর খবর জানতে পায় কনে বেসে বসা অভিভাবকরা।পরে ওই মেয়ের ভাই পুলিশি সহায়তা চেয়ে ৯৯৯ ফোন করেন।উলিপুর থানার ৯৯৯ দায়িত্বে থাকা এস আই মাহে আলম ঘটনাস্হলে উপস্থিত হয়ে সারারাত নানা নাটকীয়তা শেষে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার সময় বেরসিক পুলিশ তাকে আটক করে
নিয়ে গেলেন শ্রীঘরে। ঘটনাটি ঘটেছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের রুপার খামার গ্রামে। জানা গেছে, উপজেলার ধামশ্রেণি ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামের আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়ার পুত্র রবিউল ইসলাম(২৫) প্রায় এক বছর আগে ধরণিবাড়ী ইউনিয়নের কিশামত মালতিবাড়ী লাঠির খামার গ্রামের আনোয়ার হোসেনের কন্যাকে বিয়ে করে।
সেখানে যৌতুক বাবদ রবিউল একটি মোটরসাইকেল দাবি আসছিলো।
দরিদ্র আনোয়ার হোসেন প্রায় এক বছর ধরে মোটরসাইকেলের টাকা যোগান দিতে পারেনি।
এতে যৌতুক লোভী রবিউল বেশি যৌতুক পাওয়ার নেশায় শশুর বাড়ির ওই ইউনিয়নেই রুপার খামার গ্রামের খলিলের মেয়ের সাথে আবারো বিয়ে দিন তারিখ ঠিক করে।
বিয়ের চুক্তি অনুযায়ী গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় রবিউল বর বেসে সেজে বরযাত্রীসহ খলিলের বাড়িতে তার কন্যাকে বিয়ে করতে যায়।
সেখানে যথারীতি বিয়ে পড়ানোর কাজী উপস্থিত হলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পরে।কারণ এ কাজীই রবিউলের আগের বিয়ে রেজিস্ট্রি করেছিল।
কাজী যখন তার আগের বৌ এর কথা বলে তখন চতুর রবিউল কাজীর কাছে একটি ভুয়া ডিভোর্স লেটার দেখায়।
তাৎক্ষণিক বিয়ে বাড়িতে হৈচৈ পরে যায়।এ ফাঁকে বাদ সাধে নতুন কনের বড় ভাই।সে তৎক্ষণাৎ ৯৯৯ এ ফোন দিলে ওই মুহূর্তে দায়িত্বে থাকা এসআই মাহেআলম অন্য পুলিশ সদস্যদের নিয়ে রাত আড়াইটায় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়।এ ফাকে খবর পেয়ে প্রথম স্ত্রী ও তার বাড়ির লোকজনও গিয়ে হাজির হয় বিয়ে বাড়িতে। এরপর বিয়ের খরচ বাবদ রবিউলকে অগ্রিম দেয়া ৫০ হাজার টাকা ও বিয়ের খরচ নিয়ে চলে নানান ধরণের নাটক।নানা নাটকীয়তার পর আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উলিপুর থানা থেকে আরও পুলিশ গিয়ে রবিউল কে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে।রবিউল এখন জেলহাজতে অবস্থান করছে।

নিয়ে গেলেন শ্রীঘরে। এমন বেরসিক ঘটনাটি ঘটেছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের রুপার খামার গ্রামে। জানা গেছে, উপজেলার ধামশ্রেণি ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামের আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়ার পুত্র রবিউল ইসলাম(২৫) প্রায় এক বছর আগে ধরণিবাড়ী ইউনিয়নের কিশামত মালতিবারি এলাকার নাটির খামার গ্রামে আনোয়ার হোসেনের কন্যাকে বিয়ে করে।
সেখানে যৌতুক বাবদ রবিউল একটি মোটরসাইকেল দাবি করেছিল।
দরিদ্র আনোয়ার হোসেন প্রায় এক বছর ধরে মোটরসাইকেলের টাকা যোগান দিতে পারেনি।
ফলে রবিউল যৌতুক পাওয়ার নেশায় শশুর বাড়ির ওই ইউনিয়নেই রুপার খামার গ্রামের খলিলের মেয়ের সাথে আবার বিয়ে করার জন্য চুক্তি করে।
চুক্তি অনুযায়ী গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় রবিউল বর সেজে খলিলের বাড়িতে তার কন্যাকে বিয়ে করতে যায়।
সেখানে যথারীতি বিয়ে পড়ানোর কাজী উপস্থিত হলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পরে।
কারণ এ কাজীই রবিউলের আগের বিয়ে রেজিস্ট্রি করেছিল।
কাজী যখন তার আগের বৌ এর কথা বলে তখন চতুর রবিউল কাজীর কাছে একটি ভুয়া ডিভোর্স লেটার দেখায়।
তাৎক্ষণিক বিয়ে বাড়িতে হৈচৈ পরে যায়।
এ ফাঁকে বাদ সাধে নতুন কনের বড় ভাই।সে তৎক্ষণাৎ ৯৯৯ এ ফোন দিলে ওই মুহূর্তে দায়িত্বে থাকা এসআই মাহেআলম অন্য পুলিশ সদস্যদের নিয়ে রাত আড়াইটায় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়।
এ ফাকে খবর পেয়ে প্রথম স্ত্রী ও তার বাড়ির লোকজনও গিয়ে হাজির হয় বিয়ে বাড়িতে।
এরপর বিয়ের খরচ বাবদ রবিউলকে অগ্রিম দেয়া ৫০ হাজার টাকা ও বিয়ের খরচ নিয়ে চলে নানান ধরণের নাটক।
নানা নাটকীয়তার পর আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উলিপুর থানা থেকে আরও পুলিশ গিয়ে রবিউল কে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে।রবিউল এখন জেলহাজতে অবস্থান করছে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

রানির মৃত্যুসনদে যা লেখা হয়েছে

থাকার কথা বাসর ঘরে রবিউল এখন শ্রীঘরে

প্রকাশিত সময়: ১০:১৮:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ সেপ্টেম্বর ২০২২

স্ত্রী থাকার পরেও দ্বিতীয় বিয়ে করতে এসে জনতার হাতে আটক হলো যৌতুক লোভী বিয়ে পাগল রবিউল। বিয়ের পর রাতে রবিউলের বাসর ঘরে থাকার কথা কিন্তু বিধি বাম। জানা গেছে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধামশ্রেনী ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামে আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়া’র ছেলে প্রথম স্ত্রী থাকার পরেও দ্বিতীয় বিয়ের আসরে বসে।বিয়ের কাবিননামা সম্পাদনের সময় প্রথম স্ত্রীর খবর জানতে পায় কনে বেসে বসা অভিভাবকরা।পরে ওই মেয়ের ভাই পুলিশি সহায়তা চেয়ে ৯৯৯ ফোন করেন।উলিপুর থানার ৯৯৯ দায়িত্বে থাকা এস আই মাহে আলম ঘটনাস্হলে উপস্থিত হয়ে সারারাত নানা নাটকীয়তা শেষে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার সময় বেরসিক পুলিশ তাকে আটক করে
নিয়ে গেলেন শ্রীঘরে। ঘটনাটি ঘটেছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের রুপার খামার গ্রামে। জানা গেছে, উপজেলার ধামশ্রেণি ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামের আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়ার পুত্র রবিউল ইসলাম(২৫) প্রায় এক বছর আগে ধরণিবাড়ী ইউনিয়নের কিশামত মালতিবাড়ী লাঠির খামার গ্রামের আনোয়ার হোসেনের কন্যাকে বিয়ে করে।
সেখানে যৌতুক বাবদ রবিউল একটি মোটরসাইকেল দাবি আসছিলো।
দরিদ্র আনোয়ার হোসেন প্রায় এক বছর ধরে মোটরসাইকেলের টাকা যোগান দিতে পারেনি।
এতে যৌতুক লোভী রবিউল বেশি যৌতুক পাওয়ার নেশায় শশুর বাড়ির ওই ইউনিয়নেই রুপার খামার গ্রামের খলিলের মেয়ের সাথে আবারো বিয়ে দিন তারিখ ঠিক করে।
বিয়ের চুক্তি অনুযায়ী গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় রবিউল বর বেসে সেজে বরযাত্রীসহ খলিলের বাড়িতে তার কন্যাকে বিয়ে করতে যায়।
সেখানে যথারীতি বিয়ে পড়ানোর কাজী উপস্থিত হলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পরে।কারণ এ কাজীই রবিউলের আগের বিয়ে রেজিস্ট্রি করেছিল।
কাজী যখন তার আগের বৌ এর কথা বলে তখন চতুর রবিউল কাজীর কাছে একটি ভুয়া ডিভোর্স লেটার দেখায়।
তাৎক্ষণিক বিয়ে বাড়িতে হৈচৈ পরে যায়।এ ফাঁকে বাদ সাধে নতুন কনের বড় ভাই।সে তৎক্ষণাৎ ৯৯৯ এ ফোন দিলে ওই মুহূর্তে দায়িত্বে থাকা এসআই মাহেআলম অন্য পুলিশ সদস্যদের নিয়ে রাত আড়াইটায় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়।এ ফাকে খবর পেয়ে প্রথম স্ত্রী ও তার বাড়ির লোকজনও গিয়ে হাজির হয় বিয়ে বাড়িতে। এরপর বিয়ের খরচ বাবদ রবিউলকে অগ্রিম দেয়া ৫০ হাজার টাকা ও বিয়ের খরচ নিয়ে চলে নানান ধরণের নাটক।নানা নাটকীয়তার পর আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উলিপুর থানা থেকে আরও পুলিশ গিয়ে রবিউল কে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে।রবিউল এখন জেলহাজতে অবস্থান করছে।

নিয়ে গেলেন শ্রীঘরে। এমন বেরসিক ঘটনাটি ঘটেছে, কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের রুপার খামার গ্রামে। জানা গেছে, উপজেলার ধামশ্রেণি ইউনিয়নের খোয়াজ খামার গ্রামের আব্দুর রশিদ ওরফে লাল মিয়ার পুত্র রবিউল ইসলাম(২৫) প্রায় এক বছর আগে ধরণিবাড়ী ইউনিয়নের কিশামত মালতিবারি এলাকার নাটির খামার গ্রামে আনোয়ার হোসেনের কন্যাকে বিয়ে করে।
সেখানে যৌতুক বাবদ রবিউল একটি মোটরসাইকেল দাবি করেছিল।
দরিদ্র আনোয়ার হোসেন প্রায় এক বছর ধরে মোটরসাইকেলের টাকা যোগান দিতে পারেনি।
ফলে রবিউল যৌতুক পাওয়ার নেশায় শশুর বাড়ির ওই ইউনিয়নেই রুপার খামার গ্রামের খলিলের মেয়ের সাথে আবার বিয়ে করার জন্য চুক্তি করে।
চুক্তি অনুযায়ী গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় রবিউল বর সেজে খলিলের বাড়িতে তার কন্যাকে বিয়ে করতে যায়।
সেখানে যথারীতি বিয়ে পড়ানোর কাজী উপস্থিত হলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পরে।
কারণ এ কাজীই রবিউলের আগের বিয়ে রেজিস্ট্রি করেছিল।
কাজী যখন তার আগের বৌ এর কথা বলে তখন চতুর রবিউল কাজীর কাছে একটি ভুয়া ডিভোর্স লেটার দেখায়।
তাৎক্ষণিক বিয়ে বাড়িতে হৈচৈ পরে যায়।
এ ফাঁকে বাদ সাধে নতুন কনের বড় ভাই।সে তৎক্ষণাৎ ৯৯৯ এ ফোন দিলে ওই মুহূর্তে দায়িত্বে থাকা এসআই মাহেআলম অন্য পুলিশ সদস্যদের নিয়ে রাত আড়াইটায় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়।
এ ফাকে খবর পেয়ে প্রথম স্ত্রী ও তার বাড়ির লোকজনও গিয়ে হাজির হয় বিয়ে বাড়িতে।
এরপর বিয়ের খরচ বাবদ রবিউলকে অগ্রিম দেয়া ৫০ হাজার টাকা ও বিয়ের খরচ নিয়ে চলে নানান ধরণের নাটক।
নানা নাটকীয়তার পর আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উলিপুর থানা থেকে আরও পুলিশ গিয়ে রবিউল কে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে।রবিউল এখন জেলহাজতে অবস্থান করছে।

নিউজবিজয়/এফএইচএন