ঢাকা ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

কুড়িগ্রামে আপত্তিকর অবস্থায় এক শিক্ষক আটক

ফাইল ছবি

newsbijoy.com

অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকা অবস্থায় এক সহকারী শিক্ষককে আটক করে পুলিশকে দিয়েছে এলাকাবাসী। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের জকুরটল গ্রামে।জানা গেছে আটককৃত শিক্ষক নুরুজ্জামান খন্দকার উপজেলার উত্তর ঘোঘার কুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক । আজ বৃহস্পতিবার ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ফুলবাড়ী থানায় মামলা করার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ভুক্তভোগী ওই নারী। ঘটনাটি এলাকার মানুষ জনের মুখে মুখে আলোচিত হচ্ছে। ওই এলাকার একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, পার্শ্ববর্তী লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার দক্ষিণ বালাবাড়ী গ্রামের মোঃ বকুল মিয়ার কন্যা মোছাঃ জান্নাতী বেগমের (২৭)র সাথে ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের জকুরটল গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে তাজুল ইসলামের ৭ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর তাদের কোল জুড়ে একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয় । তাদের দাম্পত্য জীবন ভালোই কাটছিল। এরই মধ্যে সংসারে অভাব-অনটন দেখা দিলে তাজুল ইসলাম অভাবের তারনায় ঢাকায় একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে চাকরী নেন। স্বামীর দীর্ঘ অনুপস্থিতির সুযোগে সহকারি শিক্ষক নুরুজ্জামান আত্বীয়তার সুবাধে জান্নাতীর বাড়িতে আসা যাওয়া করে এবং সখ্যতা গড়ে তোলে। এরই এক পর্যায়ে তাদের উভয়ের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তাদের এ অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে এলাকার লোকজন শিক্ষককে সতর্ক করে দেন। কিন্তু কার কথা কে শুনে…. ! শিক্ষক নুরুজ্জামান বুধবার রাতে ওই নারীর বাড়ীতে যান। দীর্ঘ সময় ধরে ওই বাড়িতে অপেক্ষা করায় স্থানীয় মানুষজনের সন্দেহ হলে তারা তাদের বাড়িতে গিয়ে উভয়কে শয়ন ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন।
এরপর এলাকার লোকজন ৯৯৯ এ ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয় লোকজনের কাছে ঘটনার বিস্তারিত শুনে দু’জনকে আটক করে ফুলবাড়ী থানায় নিয়ে যায় । আটক নুরুজ্জামান ও দুই সন্তানের জনক বলে জানা গেছে। গৃহবধূ জান্নাতীর আত্মীয় রবিউল জানান, আমার ভাগ্নিকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে ওই সহকারী শিক্ষক অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে। এখন আমরা মামলা করার জন্য থানায় এসেছি। গৃহবধূ জান্নাতি জানান, মাষ্টার তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে অনৈতিক কাজে রাজি করিয়েছে। আমি এখন অসহায়। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি । অন্যথায় আত্মহত্যা করতে বাধ্য হব।
উত্তর ঘোঘারকুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাবেদ আলী জানান,আজ বৃহস্পতিবার ওই শিক্ষক বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। পরে শুনেছি নারী কেলেংকারীর ঘটনায় ধরা পড়েছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অবগত করা হয়েছে।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার আশরাফুজ্জামান জানান, আমি শুনেছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ ফজলুর রহমান জানান, শিক্ষক ও ভিকটিম থানায় রয়েছেন। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

রানির মৃত্যুসনদে যা লেখা হয়েছে

কুড়িগ্রামে আপত্তিকর অবস্থায় এক শিক্ষক আটক

প্রকাশিত সময়: ১২:৩৪:৩১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকা অবস্থায় এক সহকারী শিক্ষককে আটক করে পুলিশকে দিয়েছে এলাকাবাসী। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের জকুরটল গ্রামে।জানা গেছে আটককৃত শিক্ষক নুরুজ্জামান খন্দকার উপজেলার উত্তর ঘোঘার কুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক । আজ বৃহস্পতিবার ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ফুলবাড়ী থানায় মামলা করার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ভুক্তভোগী ওই নারী। ঘটনাটি এলাকার মানুষ জনের মুখে মুখে আলোচিত হচ্ছে। ওই এলাকার একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, পার্শ্ববর্তী লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার দক্ষিণ বালাবাড়ী গ্রামের মোঃ বকুল মিয়ার কন্যা মোছাঃ জান্নাতী বেগমের (২৭)র সাথে ফুলবাড়ী উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের জকুরটল গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে তাজুল ইসলামের ৭ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর তাদের কোল জুড়ে একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয় । তাদের দাম্পত্য জীবন ভালোই কাটছিল। এরই মধ্যে সংসারে অভাব-অনটন দেখা দিলে তাজুল ইসলাম অভাবের তারনায় ঢাকায় একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে চাকরী নেন। স্বামীর দীর্ঘ অনুপস্থিতির সুযোগে সহকারি শিক্ষক নুরুজ্জামান আত্বীয়তার সুবাধে জান্নাতীর বাড়িতে আসা যাওয়া করে এবং সখ্যতা গড়ে তোলে। এরই এক পর্যায়ে তাদের উভয়ের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তাদের এ অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে এলাকার লোকজন শিক্ষককে সতর্ক করে দেন। কিন্তু কার কথা কে শুনে…. ! শিক্ষক নুরুজ্জামান বুধবার রাতে ওই নারীর বাড়ীতে যান। দীর্ঘ সময় ধরে ওই বাড়িতে অপেক্ষা করায় স্থানীয় মানুষজনের সন্দেহ হলে তারা তাদের বাড়িতে গিয়ে উভয়কে শয়ন ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন।
এরপর এলাকার লোকজন ৯৯৯ এ ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয় লোকজনের কাছে ঘটনার বিস্তারিত শুনে দু’জনকে আটক করে ফুলবাড়ী থানায় নিয়ে যায় । আটক নুরুজ্জামান ও দুই সন্তানের জনক বলে জানা গেছে। গৃহবধূ জান্নাতীর আত্মীয় রবিউল জানান, আমার ভাগ্নিকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে ওই সহকারী শিক্ষক অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে। এখন আমরা মামলা করার জন্য থানায় এসেছি। গৃহবধূ জান্নাতি জানান, মাষ্টার তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে অনৈতিক কাজে রাজি করিয়েছে। আমি এখন অসহায়। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি । অন্যথায় আত্মহত্যা করতে বাধ্য হব।
উত্তর ঘোঘারকুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাবেদ আলী জানান,আজ বৃহস্পতিবার ওই শিক্ষক বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। পরে শুনেছি নারী কেলেংকারীর ঘটনায় ধরা পড়েছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অবগত করা হয়েছে।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার আশরাফুজ্জামান জানান, আমি শুনেছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ ফজলুর রহমান জানান, শিক্ষক ও ভিকটিম থানায় রয়েছেন। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।